রূপচর্চায় অ্যালোভেরা- Improved in 2021

রূপচর্চায় অ্যালোভেরা- Improved in 2021

রূপচর্চায় অ্যালোভেরা :

নিজেদের সৌন্দর্য্যকে আরো বেশি ফুটিয়ে তুলতে প্রাচীনকাল থেকেই নারীরা ব্যবহার করে আসছেন বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী। বর্তমান সময়েও নারীদের কাছে সেই প্রাচীনকালের প্রসাধনের জনপ্রিয়তা এখনো আছে।

মেকাপের জন্য যে ধরনের প্রসাধনী এখন বেশি জনপ্রিয় তার মধ্যে অন্যতম হাইলাইটার। তবে হাইলাইটার ব্যবহারের রয়েছে অনেক জটিলতাও। মুখের ত্বক নরম উজ্জ্বল করতে হাইলাইটার সহযোগিতা করে থাকে। এজন্য মেকআপে এর ব্যবহার অপরিসীম। তবে অনেক বিজ্ঞানী মনে করেন যে হাইলাইটারকে নিখুঁতভাবে ব্যবহার করতে আপনাকে বেশ কয়েক দিন অনুশীলন করতে হবে। হাইলাইটার ব্যবহারের আগে আপনাকে অবশ্যই আপনার ত্বকের রঙ এবং টাইপ সম্পর্কে যথেষ্ট জানতে হবে। সবকিছু ঠিক থাকার পর সেই অনুযায়ী হাইলাইটার ব্যবহার করা উত্তম।

যেমন, ত্বক যদি তেলতেলে হয়ে থাকে তাহলে ব্যবহার করা হয় হাইলাইটার পাউডার। এমনকি ত্বক যদি শুষ্ক ধরনের করে থাকে তাহলে তাকে বেছে নিতে হবে তরল হাইলাইটার। কারণ হলো প্রত্যেকবার ত্বক উজ্জ্বল করার জন্য হাইলাইটার ব্যবহার করা অনেক ঝামেলা যুক্ত কাজ। কারণ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে হাইলাইটার ব্যবহার করলে একটা নির্দিষ্ট সময় পরে ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে হয়। তাছাড়া আমি অনেক কম হাইলাইটার। বাজারে হাইলাইটার পণ্যগুলো যথেষ্ট পরিমাণ কম দামে বিক্রি হয়ে থাকে।

এজন্য নিজের শরীরের জন্য হলেও প্রাকৃতিক উপাদান বেছে নেওয়া উচিত। যেমন অ্যালোভেরা একটি প্রাকৃতিক উপাদান যা শরীরের বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা জন্য প্রাচীন কাল হতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আমরা যদি অ্যালোভেরা ব্যবহারের উপকারিতা নিয়ে ইন্টারনেটে ঘাটাঘাটি করি তাহলে অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে আমরা অনেক ধারণা পেয়ে যাব।

এখন আসুন আমরা অ্যালো ভেরার সাথে পরিচিত হই। অ্যালোভেরার বাংলা নাম ঘৃতকুমারী। অনেকেই হয়তো তা জানতেন না, প্রাকৃতিক উপাদানের মধ্যে এটি অন্যতম একটি প্রাকৃতিক হাইলাইটার। মানব দেহের ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা নিরাপদ। আমরা ত্বকের জন্য এটিকে নিঃসন্দেহে ব্যবহার করতে পারি। মুখের ত্বক হাইলাইট করতে যে কেউ প্রাকৃতিক উপাদান বা প্রাকৃতিক উপকরণ নিয়মিত ব্যবহার করার মাধ্যমে প্রাকৃতিক ভাবে মুখের ত্বক হাইলাইট করে নিতে সক্ষম হবে।

প্রাচীনকাল থেকেই অ্যালো ভেরা বা ঘৃতকুমারী সমাদৃত উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। প্রাকৃতিক এই অ্যালোভেরার মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা ত্বকের বয়সের ছাপ পড়া ট্যান দূর করা, ব্রণের দাগ দূর করার মত নানা ধরনের সমস্যার হাত থেকে রক্ষা করতে সক্ষম। এর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা হচ্ছে, এটি নিয়মিত ব্যবহার করলে ত্বকে আসে প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা যা অনেকটাই হাইলাইটারের মত মনে হবে।

অ্যালো ভেরা গাছ ও ফুলের ছবিঃ

  • অ্যালোভেরা গাছের ছবি-১
  • অ্যালোভেরা গাছের ছবি-২
  • অ্যালোভেরা গাছের ছবি-৩

অ্যালোভেরা এর ব্যবহারঃ

এটি ব্যবহার করা অনেকটাই সহজ এবং খুবই অল্প সময়ে এটি ব্যবহার করা যায়। একটা অ্যালোভেরার পাতা কিনে সেটা ছোট ছোট করে টুকরো করেএএক পাশের খোসা ছাড়িয়ে ভালোভাবে ধুয়ে সেটা ব্যবহার করতে হবে। এমন অনেকেই আছেন যারা অ্যালো ভেরা ব্যবহার করলে তাদের শরীরে নানা রকম এলার্জি সমস্যা দেখা দেয়। সে ক্ষেত্রে ব্যবহারের আগেই অল্প একটু অ্যালো ভেরা নিয়ে তা হাতের উপর অথবা গলার উপর দিকটায় লাগিয়ে দেখতে হবে, তা আপনার ত্বকের সাথে মানাচ্ছে কিনা। আপনার শরীরে কোনরকম সমস্যা দেখা দিচ্ছে কিনা।

ত্বকে উজ্জলতা বাড়াতে এবং প্রাকৃতিকভাবে লাবণ্যময় করে তুলতে অ্যালোভেরা ব্যবহারের অসীম। চাইলে আপনিও আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা ও শারীরিকভাবে লাবণ্যময় করতে এটির ব্যবহার শুরু করতে পারেন। বর্তমানে বাজারে স্টেমও পাওয়া যায়। চাইলে সেগুলিও ব্যবহার করতে পারেন ত্বকের জন্য।

শুধু ত্বকেই নয়, চুলের যত্নেও অ্যালোভেরা বেশ উপকারী। যেমন যাদের চুল খুবই শুষ্ক ও মাথায় এলার্জি অথবা চুলকানি আছে তারা এটি ব্যবহার করতে পারেন। অ্যালোভেরার অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ও এন্টিফাঙ্গাল উপাদান চুল পড়া ও খুশকির সমস্যা দূর করতে অনেক সহযোগিতা করবে। এছাড়াও চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে ও এটি খুবই কার্যকরী। সে জন্য অ্যালো-ভেরার রস এর সঙ্গে আমলকির রস মিশিয়ে নিয়মিত চুলের লাগাতে হবে। ত্বকের র‌্যাশ, চুলকানি, রোদে পোড়া দাগ দূর করতেও এটি ব্যবহারের উপকারিতা অপরিসীম।

অন্তরসজ্জাতেও অ্যালোভেরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ঘরের বাতাসকে পরিশুদ্ধ করতে এয়ার পিউরিফায়ার বসাতে হয়। কিন্তু একটি অ্যালোভেরা গাছ ঘরের বাতাস এর গুনাগুন উন্নত করে দিতে সক্ষম। এমনকি এর ব্যবহার দিন দিন যেন বেড়েই চলেছে এই সকল কাজের জন্য। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, একটি অ্যালোভেরা গাছ নয়টি এয়ার পিউরিফায়ার থেকেও ভালো কাজ করে থাকে! ইনডোর প্ল্যান্টেশনের ভিতর স্নেক প্ল্যান্ট হচ্ছে সবথেকে জনপ্রিয় বহুল একটি গাছ। অনেকের ঘরের ডাইনিং, বেডরুমে এই গাছ লাগিয়ে রাখেন ভালো ফলাফল পাওয়ার আশায় এবং তা পান ও। ঘরের সৌন্দর্যের পাশাপাশি এই কাজ বাতাসের মধ্যে টক্সিন শোষণ করে নিয়ে যায় এই গাছ।

শুধু রূপচর্চায় নয় বর্তমানে এটি ব্যবহৃত হচ্ছে দৈনন্দিন প্রায় অনেক কাজেই। আশা করি এই পোস্টটি থেকে অ্যালোভেরা এর ব্যবহার, এর উপকারিতা ও অন্যান্য তথ্য সম্পর্কে আমরা উপরে বিস্তারিতভাবে জানতে পারলাম । তাহলে আর দেরি নয়, এখনই সময় অ্যালোভেরা ব্যবহারের।

আমাদের এই তথ্যবহুল পোস্টটি যদি আপনার কোন কাজে আসে বা ভালো লেগে থাকে অবশ্যই আপনার বন্ধুকে জানার সুযোগ করে দিবেন একটি শেয়ারের মাধ্যমে। পাশে থাকুন, সাপোর্ট করুন আরো নতুন তথ্য জানার জন্য।

আরও পড়তে এখানে ক্লিক করুন। এবং অ্যালো ভেরা ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুনঃ

ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *